সুজানগর-চিনাখড়া সড়কের বেহাল দশা

সুজানগর-চিনাখড়া সড়কের বেহাল দশা

প্রায় ১১ কিলোমিটার সুজানগর-চিনাখড়া পাকা সড়কের বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। দীর্ঘদিন যাবৎ সংস্কার না হওয়ায় পাবনা জেলার সড়ক ও জনপথ বিভাগের আওতাভুক্ত আঞ্চলিক এ মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে বড়-বড় গর্ত আর খানা খন্দের সৃষ্টি হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতেই সড়কের বড় বড় গর্তে পানি জমে চলাচলের জন্য একেবারেই অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি।

সুজানগর থেকে চিনাখড়া হয়ে রাজধানী ঢাকা যাওয়ার জন্য একমাত্র প্রধান এ সড়কের বেশিরভাগ স্থানে খানাখন্দ সৃষ্টি হওয়ায় কোন ধরণের যানবাহন যেতে চায়না । আর একটু বৃষ্টি হলে গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি পরিণত হয় জলাশয়ের।গত কয়েকদিনের বৃষ্টিপাতে সে গর্তগুলোতে পানি জমে থাকায় দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে চলাচলকারী যানবাহন ও সাধারণ মানুষ। পানি জমে থাকার কারণে গর্তের গভীরতা বুঝতে পারছেননা যানবাহন চালককরা। ফলে দুর্ঘটনা ঘটার পাশাপাশি যানবাহনসহ জনসাধারণের চলাচল করতে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে ।

রবিবার সকালে সরেজমিন সড়কটি ঘুরে দেখা যায় সুজানগর পৌরসভার প্রফেসারপাড়া থেকে পোড়াডাঙ্গা হয়ে চিনাখড়া পর্যন্ত প্রায় ১১কিলোমিটার সড়কের বেশিরভাগ স্থানেই খানাখন্দের পাশাপাশি বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এই সড়কের সিএনজি চালক আব্দুল হাই ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন, এটি কোনও সড়ক হল। কেউ দেখেনা মানুষের দুর্গতি। প্রায়শ এই সড়কে দুর্ঘটনা ঘটছে। সড়কটি দ্রুত মেরামতের দাবি জানান তিনি।

সড়কের এ বেহাল দশা নিয়ে জানতে চাইলে পথচারী শাহজাহান আলী জানান, বড় কষ্টে আছি ভাই। এটি সড়ক নয় যেন মরণ ফাঁদ। কেউ এই সড়কের খবর নেয়না। সারা দেশে উন্নয়ন হচ্ছে অথচ এই সড়কের খোঁজ কেউ নেয় না।

সুজানগর প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও প্রবীণ সাংবাদিক আব্দুস শুকুর জানান, গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটির বেহাল অবস্থার কারণে কোন ব্যক্তি অসুস্থ হলেও দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার কোন ব্যবস্থা নেই। এ বিষয়ে সড়ক ও জনপথ বিভাগের পাবনার নির্বাহী প্রকৌশলী এ,কে,এম শামসুজ্জোহা সুজানগর.কম কে জানান, অতি শীঘ্রই গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটির সংস্কার কাজ শুরু করা হবে ।

error: অতি চালাকের গলায় দড়ি !!