সুজানগরে ২২৬ কোটি টাকা ব্যয়ে পাম্পিং ষ্টেশন নির্মাণ কাজ শেষ পর্যায়ে

সুজানগরে ২২৬ কোটি টাকা ব্যয়ে পাম্পিং ষ্টেশন নির্মাণ কাজ শেষ পর্যায়ে

পাবনার সুজানগরবাসীর স্বপ্ন তালিমনগর ডুয়েল সিস্টেম পাম্পিং ষ্টেশন মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে।সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানাযায় এর নির্মাণ কাজ সমাপ্ত হচ্ছে অতি দ্রুতই। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়া পওর বিভাগের তত্বাবধানে সেনাবাহিনী পরিচালিত রাষ্ট্রিয় প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ডিজেল প্লান লিমিটেড সুজানগর উপজেলার সাগরকান্দি ইউনিয়নের তালিমনগরে পাম্পিং ষ্টেশনটি নির্মাণ করছে। এ কাজে প্রাক্কলিত ব্যায় ধরা হয়েছে প্রায় ২২৬ কোটি টাকা।


জানা যায়, “গাজনার বিল সংযোগ নদী খনন, সেচ সুবিধা উন্নয়ন ও মৎস্য চাষ” প্রকল্পের প্রাণ ৬৮ মিটার দৈর্ঘ, ৯৮ মিটার প্রস্ত এবং ১৫ মিটার উচ্চতার তালিমনগর পাম্পিং ষ্টেশনে হাইওয়ে ব্রীজ ও সার্ভিজ ব্রীজ নির্মাণ কাজ প্রায় শেষের পথে। পাম্পিং ষ্টেশনে ৮টি সাবমারসিবল মটর বসানো হয়েছে।

প্রতিটি মটরের ক্যাপাসিটি ৪৫০ কিলোওয়াট, ৬০৩ এইচপি। প্রতিটি পাম্প মেশিনের পানি প্রবাহ ( উত্তোলন ও নিস্কাশন) ক্ষমতা ৫.০০ কিউমেক= ১৭৬.৬০ কিউসেক। ডুয়েল সিস্টেম এই পাম্পিং ষ্টেশনে সেচ ও নিস্কাশন সুবিধা রয়েছে। তালিমনগরে একটি বিদ্যুৎ সাবষ্টেশন এবং বেড়ার কৈটোলা থেকে সুজানগরের তালিমনগর পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন স্থাপন করা হবে।


পাম্পিং ষ্টেশন পরিচালনার সুবিধার্থে একটি কন্ট্রোল রুম নির্মাণ করা হয়েছে। আউটার বাউন্ডারী ওয়াল ও সিসি ক্লক পিসিংয়ের কাজ শেষ করা হয়েছে। পাম্পিং ষ্টেশনের উভয় পাশের গভীর খাল ভরাট করা হয়েছে। যমুনা ও বাদাই নদীর সাথে ৭ কিলোমিটার সংযোগ খাল এবং পুরাতন বাদই নদীতে ৭০০ মিটার প্রধান খাল খননের কাজ রয়েছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সাইড ইঞ্জিনিয়ার মোঃ লুৎফর রহমান জানান, পুরাতন বাদাই নদীতে ৭০০ মিটার প্রধান খাল খনন করে ওই মাটি দিয়ে পাম্পিং ষ্টেশনের চার পাশের খাল ভরাট করার কথা ছিল।কিন্তু ডিসি অফিস পুরাতন বাদাই নদী মৎস্য চাষিদের লীজ দেয়ার কারণে খনন কাজ শুরু করা যাচ্ছে না।


তালিমনগর প্রকল্প এালাকা সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, প্রকল্প এলাকায় ৪৯ কিলোমিটার বাদাই নদী খনন করা হয়েছে। এই প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে এর কমান্ড এরিয়ার এক ফসলী জমি দুই ফসলী এবং দুই ফসলী জমি তিন ফসলীতে রুপান্তরিত হবে। ফসলের গড় উৎপাদন ১৩৮ শতাংশ থেকে বেড়ে ৩০০ শতাংশতে উন্নিত হবে। এতে করে বছরে প্রায় ৩০০ কোটি টাকার অতিরিক্ত কৃষিজ পণ্য উৎপাদন হবে।

গাজনার বিল, বিল গ্যারগা, গাঙভাঙ্গার বিল ও মোস্তার বিলের অভয়াশ্রম এবং বাদাই ও আত্রাই নদী থেকে বছরে প্রায় ২০০ কোটি টাকার দেশীয় প্রজাতির মাছ পাওয়া যাবে। শুস্ক মওসুমে সাবমার্জএবল সড়ক পথে গাড়ীতে এবং বর্ষা মওসুমে নদী পথে নৌকায় করে কৃষকরা মাঠ থেকে উৎপাদিত ফসল ঘরে নিতে পারবে।


সুজানগর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীনুজ্জামান শাহীন বলেন সুজানগরবাসীর স্বপ্ন তালিমনগর ডুয়েল সিস্টেম পাম্পিং ষ্টেশন নির্মাণ কাজ শেষে এটি চালু হলে ব্যাপক লাভবান হবেন এ উপজেলা সহ আশপাশের অন্য সকল এলাকার মানুষ। এ সময় তিনি আরো জানান অতীতে বিএনপি জামায়াত জোট সরকার রাষ্ট্রিয় ক্ষমতায় থাকলেও এ এলাকার মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে কোন কাজ করেনি। কিন্তু স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যখনই রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকে তখনই দেশে ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়। তার বড় উদাহরণ ২২৬ কোটি টাকা ব্যয়ে এই তালিমনগর ডুয়েল সিস্টেম পাম্পিং ষ্টেশন নির্মাণ।


বেড়া পানি উন্নয়ন বিভাগ সুত্র জানায় এই প্রকল্পের ২৭ হাজার হেক্টর জমি নিস্কশন এবং ১৭ হাজার হেক্টর জমি সেচ সুবিধা পাবে। এক ফসলী জমি দুই ফসলী এবং দুই ফসলী জমি তিন ফসলীতে রুপান্তরিত হবে। প্রকল্প এলাকায় বছরে প্রায় ৫০০ কোটি টাকার অতিরিক্ত কৃষিজ পণ্য ও দেশীয় প্রজাতির মাছ উৎপাদন হবে।আর এর ফলে এলাকার মানুষের আর্থ-সামাজিক অবস্থার এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন সাধিত হবে।

error: অতি চালাকের গলায় দড়ি !!