সুজানগরে সন্তানদের অপমান সইতে না পেরে বৃদ্ধা মায়ের আত্মহত্যা

সুজানগরে সন্তানদের অপমান সইতে না পেরে বৃদ্ধা মায়ের আত্মহত্যা

সুজানগরে সন্তানদের অপমান সইতে না পেরে এক বৃদ্ধা মায়ের আত্মহত্যা ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাটি ঘটে সুজানগর উপজেলার তাঁতীবন্দ ইউনিয়নের ক্রোড়দুলিয়া গ্রামে রবিবার (২৫ অক্টোবর) ভোর ছয়টার দিকে। আত্মহত্যাকারী বৃদ্ধা মোছাঃ জামেলা খাতুন (৮০) ক্রোড়দুলিয়া গ্রামের মৃত নাছির উদ্দিন শেখের স্ত্রী।

এদিকে এ ঘটনার পরপরই বৃদ্ধা মহিলার দুই সন্তান আব্দুল আলিম ও আব্দুর রহিমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। স্থানীয় এলাকাবাসী ও নিহতের পারিবারিক সুত্রে জানাযায় বৃদ্ধা জামেলা খাতুনের আব্দুর রহিম শেখ, আব্দুল আলিম শেখ, আব্দুল করিম শেখ, সেলিম শেখ ও আমজাদ হোসেন আজাদ শেখ নামে পাঁচ সন্তান ও মাজেদা খাতুন নামে এক মেয়ে রয়েছে।

এর মধ্যে মেঝ ছেলে আব্দুল করিম শেখ ও ছোট ছেলে আমজাদ হোসেন আজাদ বিভিন্ন সময়ে তার অপর ভাই আব্দুল আলিমের নিকট থেকে প্রায় ২২ লাখ টাকা নেয়। এছাড়া স্থানীয় অনেকের কাছ থেকেও ওই দুইভাই টাকা ধার নেয়। কিন্তু আজ নয় কাল এভাবে বছরের পর বছর টাকা পরিশোধ না করে এলাকা থেকে চলে যায়।

পরে স্থানীয় লোকজন টাকার জন্য তার মাকে চাপ দিলে প্রথম পর্যায়ে ৮ শতক জমি বিক্রি করে সেই দেনা কিছুটা পরিশোধ করে বৃদ্ধা মা। কিন্তু ভাই আব্দুল আলিমের কাছ থেকে নেওয়া ২২ লাখ টাকা অপর দুইভাই আর পরিশোধ না করায় তার মাকে জমি লিখে দিতে চাপ প্রয়োগ করেন সন্তান আব্দুল আলিম। সেই অনুযায়ী বৃদ্ধা জামেলা খাতুন শনিবার (২৪ অক্টোবর) সন্তান আব্দুল আলিম, আব্দুর রহিম ও সেলিম শেখের নামে প্রায় ৮০ শতক জমি সম্প্রদান করে দেন। যেন তার ওই দুই সন্তানের দেনা এলাকার মানুষদের পরিশোধ করে দেন জমি সম্প্রদান করে নেওয়া সন্তানেরা।

এই কথা অপর দুই সন্তান করিম ও আজাদ জানতে পেরে মোবাইলে তার মাকে অশ্লীন ভাষায় কথা বলেন। আর সন্তানদের এই অপমান সইতে না পেরে সবার অজান্তে নিজ বাড়ীর ঘরের ডাবের সাথে কাপড় পেঁচিয়ে রবিবার ভোর ছয়টার দিকে আত্মহত্যা করেন বৃদ্ধা মা জামেলা খাতুন।

এদিকে ঘটনার পরপরই সুজানগর থানা পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে। এ বিষয়ে সুজানগর থানা অফিসার ইনচার্জ বদরুদ্দোজা জানান ময়না তদন্ত শেষে প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

error: অতি চালাকের গলায় দড়ি !!