বিশেষ চাহিদাসম্পন শিশুরাও সমাজের সম্পদ

বিশেষ চাহিদাসম্পন শিশুরাও সমাজের সম্পদ- সানজিদা ইয়াসমি

বিশেষ চাহিদাসম্পন শিশুরাও সমাজের সম্পদ। উপযুক্ত পরিচর্যা ও প্রশিক্ষণ পেলে এরা দেশ ও জাতির উনয়ন ভূমিকা রাখতে পারে বলে জানিয়েছেন আবুল কাশেম ফাউন্ডশনর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক সানজিদা ইয়াসমিন টুম্পা।

মঙ্গলবার সুজানগরর বিশেষ চাহিদা সম্পন(প্রতিবন্ধী) শিশু ও অসহায় দুস্থ মানুষদের মাঝে ফাউন্ডশনের উদ্যাগে শীতবস্ত্র (কম্বল) বিতরণের উদ্বোধনকালে তিনি বলেন আমাদের যার যার অবস্থানে থেকে যথাসাধ্য কাজ করে যেতে হবে বিশেষ চাহিদা সম্পন শিশুদের কল্যাণের জন্য ।

প্রতিবন্ধী ব্যক্তি আমাদের বােঝা নয়, সম্পদে পরিণত করতে হবে। ক্ষুদ্র উদ্যাক্তা বা আত্মকর্মসংস্থান, তাদের সহযাগিতা করা, তাদের পিছনে ইনভেস্টমেন্ট করে তাদের সম্পদে পরিণত করা।

বিশেষ চাহিদা সম্পন ব্যক্তিদের অনেকেই শিক্ষিত আছে তাদের পেছনে সরকারি-বেসরকারিভাবে কিছু অর্থ বিনিয়ােগ করলে দেশ অনেক কিছু পেতে পারে বলেও জানান তিনি। ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহীনুজ্জামান শাহীনের সহধর্মিনী সানজিদা ইয়াসমিন টুম্পা আরা বলেন সুজানগর উপজলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রয়াত আবুল কাশেম এর স্মরণে প্রতিষ্ঠিত এই ফাউন্ডশনের পক্ষে থেকে অতীতেও অসহায় মানুষদের মাঝে নতুন কাপড়, শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। অসহায় মানুষেরা শীতবস্ত্রর অভাব অনেক কষ্ট রাত কাটায়। শীতে করােনার প্রার্দুভাব বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই আমরা শীত বস্ত্র বিতরণের মাধ্যমে তাদের শীতের কষ্ট লাঘবের চেষ্টা করে যাছি। ভবিষ্যতও এ ধরণর কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে এ কাজের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখা ও মানবসেবায় নিয়াজিত থাকার প্রয়াসও ব্যক্ত করেন তিনি।

এদিক বিশ্বের অন্যতম ত্রাস করোনাভাইরাসের কারণে সমগ্র বিশ্ব এখন অর্থনৈতিক সমস্যায়। আর এর বাইরে নয় বাংলাদেশ। প্রতিনিয়ত বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল। মানুষেরা রয়েছে মহা বিপদে। বিশেষ করে নিম্ন আয়ের ও দিনমজুর মানুষেরা পড়েছেন মহা সংকটে। তবে সবাইকে ছাড়িয়ে প্রতিবন্ধী ব্যক্তি কিংবা তাদের পরিবার পড়েছে অথই জলে।

তাদের ভোগান্তি ছাড়িয়ে গেছে অতীতের সব সীমা। করোনার কারণে সৃষ্ট এমন এক বাস্তবতার এই সময়ে সুজানগরের বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন(প্রতিবন্ধী) শিশু ও অসহায় মানুষদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করায় আবুল কাশেম ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক সানজিদা ইয়াসমিন টুম্পার মহৎ এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন প্রশাসনের কর্মকর্তা ও সুজানগরের সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা।

সুজানগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রওশন আলী এ ধরণের কার্যক্রমের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন বর্তমান ও অতীতের ন্যায় ভবিষ্যতেও এই ধরণের সহায়তা কার্যক্রম ফাউন্ডেশনটি অব্যাহত রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। উল্লেখ্য প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই আবুল কাশেম ফাউন্ডেশন সুজানগর উপজেলার অসহায় ও দুস্থ মানুষদের সহযোগিতার পাশাপাশি বিভিন্ন সমাজসচেতনতা মূলক কাজ করে আসছে ।

 

error: অতি চালাকের গলায় দড়ি !!