চোখের জলে সোহেলকে শেষ বিদায় জানালেন রাজনৈতিক সহযোদ্ধা সহ সর্বস্তরের মানুষ

চোখের জলে সোহেলকে শেষ বিদায় জানালেন রাজনৈতিক সহযোদ্ধা সহ সর্বস্তরের মানুষ

পরিবার পরিজন, আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব সর্বপরি রাজনৈতিক সহযোদ্ধাদের কাঁদিয়ে নাফেরার দেশে পাড়ি জমালেন সুজানগর পৌর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সোহেল খান। সে সুজানগর আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি ও পৌর ৫ নং ওয়ার্ডের চরসুজানগর গ্রামের মসলেম উদ্দিন (মুসা খাঁ) এর ছোট পুত্র। সোহেল বুধবার (৫ আগস্ট) দুপুর ২টার দিকে হঠাৎ করে স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করেন (ইন্নাল্লিহে………রাজেউন)।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ২৮ বছর। তিনি মা,বাবা, স্ত্রী, ৩ ভাই, ৩ বোন, আত্মীয়স্বজন সহ বহু গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। সদা হাস্যজ্জল সোহেলের মৃত্যুর খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সর্বস্তরের মানুষের মাঝে শোকের ছায়া নেমে আসে।

মৃত্যুর পর তার মরদেহ পাবনা সদর হাসপাতাল থেকে দুপুর সাড়ে তিনটার দিকে তার নিজ বাসভবন চর সুজানগর এসে পৌঁছালে শেষ বারের মত তাকে দেখতে ছুটে আসেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ উপ কমিটির সাবেক সহ সম্পাদক কামরুজ্জামান উজ্জল, সুজানগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহীনুজ্জামান শাহীন, পৌর মেয়র আব্দুল ওহাব, জেলা পরিষদ সদস্য রেজাউল করিম রেজা, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি ফেরদৌস আলম ফিরোজ ও দলীয় অন্যান্য নেতৃবৃন্দ সহ অসংখ্য মানুষ। পরে সুজানগর পৌর বালুর মাঠ চত্বরে এদিন সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় তার জানাজা নামাজ অনুষ্ঠিত হয় ।

জানাজা নামাজে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ উপ কমিটির সাবেক সহ সম্পাদক কামরুজ্জামান উজ্জল, সুজানগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহীনুজ্জামান শাহীন, পৌর মেয়র আব্দুল ওহাব, সুজানগর প্রেসক্লাবের সভাপতি শাহজাহান আলী, পাবনা জেলা পরিষদ সদস্য রেজাউল করিম রেজা, বিআরডিবির চেয়ারম্যান একিউএম শামসুজ্জোহা বুলবুল, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি ফেরদৌস আলম ফিরোজ, সাধারণ সম্পাদক শেখ মিলন, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সরদার রাজু আহমেদ, সুজানগর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এম এ আলিম রিপন, পৌর যুবলীগের সভাপতি জুয়েল রানা,সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম তমাল, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম সোহাগ, এন এ কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রেদোয়ান নয়ন, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মী, জনপ্রতিনিধি সহ সর্বস্তরের হাজারো মানুষ অংশগ্রহন করেন।

চোখের জলে সোহেলকে শেষ বিদায় জানালেন রাজনৈতিক সহযোদ্ধা সহ সর্বস্তরের মানুষ

জানাজার পূর্বে সোহেলের জীবনের উপর স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীনুজ্জামান শাহীন বলেন সোহেল খান ছিলেন দলের জন্য একজন নিবেদিত প্রাণকর্মী। তার মৃত্যুতে আওয়ামীলীগ একজন ত্যাগী ও নিবেদিতপ্রাণ কর্মীকে হারালো। জানাজার পর স্থানীয় চরভবানীপুর কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হয়।

এদিকে সোহেল খানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করার পাশাপাশি শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন ও তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেছেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সুজানগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীনুজ্জামান শাহীন ।

উল্লেখ্য ২০১০ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত সোহেল খান সুজানগর পৌর ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এর আগে বিভিন্ন রাজনৈতিক আন্দোলন সংগ্রামে তিনি দলের জন্য রাজপথে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।

error: অতি চালাকের গলায় দড়ি !!