গাজনার বিলে অবৈধ সুতি জালের বাঁধ অপসারণ করলেন ইউএনও

গাজনার বিলে অবৈধ সুতি জালের বাঁধ অপসারণ করলেন ইউএনও

সুজানগর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী গাজনার বিলে অবৈধভাবে পেতে রাখা নিষিদ্ধ সুতি জালের ১০টি বাঁধ অপসারণ করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। রবিবার (২১ সেপ্টেম্বর) সুজানগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার রওশন আলীর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত গাজনার বিলের হরের জলা, বিলগন্ডহস্তী ও বাদাই জলকর সহ বিলের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে অবৈধ এ সব বাঁধ অপসারণ করেন। তবে এসবের সাথে জড়িতদের ধরা যায়নি। পরে জব্দকৃত বাঁধ তৈরির উপকরণ বিনষ্ট করা হয়।

থানা পুলিশের সহযোগিতায় অভিযানকালে এ সময় পাবনা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুর রউফ,উপজেলা সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম সহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য গাজনার বিলের উৎস মুখে অবৈধ সুতি জালের বাঁধ স্থাপন করে অবাধে মাছ নিধন করা হচ্ছিল। উপজেলা প্রশাসন বেশ কয়েকবার সুতি জালের বাঁধ স্থাপনে বাধা দিলেও প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে আবারো মৎস্য নিধনে মেতে উঠে কতিপয় প্রভাবশালীরা।

গাজনার বিলের বিভিন্ন স্থানে বাঁশ, চাটাই ও নেট জালের সাহায্যে বাঁধ দিয়ে বিলকে সংকুচিত করে বিলের স্বাভাবিক প্রবাহিত পানির গতিকে বহুগুন বাড়িয়ে কৃত্রিম স্রোত সৃস্টি করে নিষিদ্ধ সুতি জাল পেতে মাছ শিকার করা হয়। এভাবে অবৈধ সুতিজাল পাতার কারণে ছোট-বড় সব ধরণের মাছ সহ বিলের জলজ প্রানীও ধরা পড়ে।

পাবনা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুর রউফ জানান রবিবারের অভিযানে ১০টি সুতিজালের বাঁধ উচ্ছেদ করা হয়েছে। আর ঐতিহ্যবাহী এ গাজনার বিলের পানিপ্রবাহ বাধাগ্রস্থ করে অবৈধভাবে কাউকে মাছ শিকার করতে দেওয়া হবেনা।

সুজানগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ রওশন আলী জানান মৎস্য রক্ষা ও সংরক্ষন আইন ১৯৫০ মোতাবেক উপজেলার গাজনার বিলে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে অবৈধ সুতিজালের বাঁধ উচ্ছেদ করা হয়েছে। এবং এই অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

error: অতি চালাকের গলায় দড়ি !!